24 Oct 2017 : সিলেট, বাংলাদেশ :     |Bangla Font Error | Login |

বাহুবলে গৃহবধূর মৃত্যু নিয়ে রহস্য রহিমার স্বজনেরা বলছেন পরিকল্পিত হত্যা

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ঃ হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার পার্শ্ববর্তী বাহুবল উপজেলার লাকড়িপাড়া গ্রামে স্বামীর বাড়িতে রহিমা আক্তার লাভলী (১৯) নামের গৃহবধুর মৃত্যু নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। রহিমার স্বজনেরা বলছেন শ্বশুর বাড়ির লোকজন তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। অপরদিকে তার স্বামীর বাড়ির লোকজনদের দাবি গৃহবধু লাভলী স্ট্রোক করে মারা গেছে। তিন দিন পর লাশ ময়না তদন্ত শেষে দাফন করা হয়েছে।সুত্রে প্রকাশ,বড়গাঁও গ্রামের আব্দুল হামিদ চৌধুরীর কন্যা মোছাঃ রহিমা আক্তার লাভলী চৌধুরীকে প্রায় আট মাস পুর্বে বিয়ে দেয়া হয় বাহুবল উপজেলার লাকড়িপাড়া গ্রামের মোঃ জিতু মিয়ার পুত্র মোঃ হেলাল মিয়ার নিকট। বিয়ের পর থেকে তাদের দাম্পত্য জীবন সুখে শান্তিতে ছিলো। গত রোববার সকাল ৯ টায় গৃহবধু মোছাঃ রহিমা আক্তার লাভলী স্বামীর বাড়িতে মারা যায়।ওই সংবাদ লাভলীর পিতা ও আত্মীয় স্বজনদের দেয়া হলে তারা শ্বশুরালয়ে যান।এবং দাফন কাফনের ব্যবস্থা করেন।এক পর্যায়ে তাদের সন্দেহ হয় লাভলী এভাবে মারা যেতে পারে না।তাকে হত্যা করা হয়েছে।এমনকি লাভলীর পিতার বাড়ির লোকজন বাহুবল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। থানার এসআই সুহেল মিয়া লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে লাশ থানায় নিয়ে যান । লাভলীর মৃত্যু নিয়ে দুই পরিবারের মাঝে মতবিরোধ আরো চাঙ্গা হয়ে উঠে। কোন সুরাহা না হওয়ায় গৃহবধুর লাশ ২৪ ঘন্টা বাহুবল থানায় থাকার পর গত সোমবার সকালে লাশটি হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে মর্গে প্রেরণ করা হয়। হবিগঞ্জ হাসপাতালের মর্গে ডাক্তার লাশের ময়না তদন্ত করতে গেলে সেখানেও সৃষ্টি হয় এক বিরাট জটিলতা। সুরতহাল রিপোর্ট গড়মিল থাকায় দায়িত্বরত ডাক্তার দেবাশিষ দাশ অনিহা প্রকাশ করেন। অবশেষে গত মঙ্গলবার বাহুবল থানা পুলিশ সুরতহাল রিপোর্ট সংশোধন করে দেয়ায় লাশের পুণঃ ময়না তদন্ত সম্পন্ন হয়। পরে লাশটি গৃহবধুর পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জানাজার নামাজ শেষে পারিবারিক কবর স্থানে দাফন করা হয়। এব্যাপারে বাহুবল থানার ওসি জানান, হত্যা না স্বাভাবিক মৃত্যু ময়না তদন্ত রিপোর্ট ছাড়া বলা যাবেনা।এ বিষয়ে ডাক্তার দেবাশিষ জানান,লাশের সুরতহাল রিপোর্ট গড়মিল থাকায় ময়না তদন্ত করতে দেরী হয়।

  (52 বার পড়া হয়েছে)

(Visited 1 times, 1 visits today)