24 Oct 2017 : সিলেট, বাংলাদেশ :     |Bangla Font Error | Login |

জকিগঞ্জ শুল্ক স্টেশনে রাজস্ব আয়ে ধস, শতশত শ্রমিক বেকার

Zakigonj

এখলাছুর রহমান, জকিগঞ্জ থেকেঃ সিলেটের জকিগঞ্জ শুল্ক স্টেশন দিয়ে আমদানী ও রপ্তানিতে রাজস্ব আয়ে বিরাট আকারের ধস নেমেছে। গত মে মাস থেকে নির্ধারিত কয়েকটি আমদানী পণ্য ছাড়া কোন পণ্য আমদানী হচ্ছে না। এতে বেকার হয়ে পড়েছেন শতশত শ্রমিক। সরেজমিন জকিগঞ্জ শুক্ল স্টেশনে গিয়ে দেখা যায়, নিরব হয়ে পড়ে আছে জকিগঞ্জ কাস্টম ঘাট খ্যাত কুশিয়ারা নদীর পাড়। শ্রমিকদের নেই কোন কোলাহল। অফিসেও নেই কোন কর্মকর্তা-কর্মচারী। একজন কর্মচারী জানান, অফিসের সবাই ছুটিতে আছেন। কিছু কিছু সাতকরা ও আদা ছাড়া আর কিছুই হচ্ছেনা আমদানী। রপ্তানি একেবারে নেই।
স্থানীয়রা জানান, এক সময় জকিগঞ্জ শুক্ল স্টেশন দিয়ে শুটকি, সাতকরা, কমলা, আদা, বিভিন্ন তাজা ফলমূল, কাঁচা মাল ও কয়লার জমজমাট আমদানী হলেও গত মে মাস থেকে মাঝে মধ্যে সাতকরা ও আদা ছাড়া আর কিছুই আমদানী হচ্ছেনা। এছাড়া সিলেট-জকিগঞ্জ সড়ক যোগাযোগ ভেঙ্গে পড়ায় রপ্তানী একেবারে নেই বললে চলে। এক সময় এ শুক্ল স্টেশন দিয়ে মাসে কোটি টাকার রাজস্ব আয় হলেও এখন তাতে ধ্বস নেমে ৮/১০ লাখে পৌছেছে। আর এ কারণে বেকার হয়ে পড়েছে এলাকার শত শত শ্রমিক ও কর্মচারী। সূত্র জানায়, ১৯৪৭ সালে প্রতিষ্ঠিত জকিগঞ্জ শুক্ল স্টেশনটি জন্মলগ্ন থেকে নানা সমস্যায় জর্জড়িত। ছোট পরিসরে অস্থায়ীভাবে ৫টি পাকা ঘর নির্মাণ করে শুল্ক স্টেশনটির কার্যক্রম চালু হলেও দীর্ঘ ৭৩ বছর ধরে সংস্কার বিহীন জরাজীর্ণ আধাপাকা ঘরগুলোতে কর্মকর্তা কর্মচারীরা দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। এখানে নেই প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র ও আবাসিক ব্যবস্থা। রাস্তা থেকে ভিটা নীচু থাকায় বৃষ্টির পানি সহজেই ঢুকে পড়ে অফিসে।
এ প্রসঙ্গে আমদানী রপ্তানী কারক সমিতি সিলেট জেলা সহ সভাপতি আবুল কালাম বলেন, জকিগঞ্জ শুক্ল স্টেশনের সমস্যার অন্ত:নেই। এক সময় এ শুক্ল স্টেশন দিয়ে জমজমাট আমদানী রপ্তানী হলেও এখন তাতে ধ্বস নেমেছে। বার্মাসহ বিভিন্ন দেশ থেকে মালামাল আমদানী হওয়ায় ক্রমেই ধ্বস নামতে শুরু করেছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।
জকিগঞ্জ শুল্ক স্টেশনের রাজস্ব কর্মকর্তা হুমায়ুন আহমদ জানান, জকিগঞ্জ শুক্ল স্টেশনে আমদানী রপ্তানীতে রাজস্ব আয়ে ধ্বস নেমেছে। সিলেটের যোগাযোগ ব্যবস্থা নাজুক হয়ে পড়ায় ও নদী পথ হওয়ায় আমদানী ও রপ্তানীতে এমন অবস্থা বিরাজ করছে। বিগত অর্থ বছরের জুলাই মাসে ২৮ লক্ষ টাকা রাজস্ব আয় হলেও চলতি অর্থ বছরে রাজস্ব আয় হয়েছে মাত্র ৮ লক্ষ টাকা। (72 বার পড়া হয়েছে)

(Visited 1 times, 1 visits today)