21 Sep 2017 : সিলেট, বাংলাদেশ :     |Bangla Font Error | Login |

মালয়েশিয়া ইমিগ্রেশনে অবৈধ শ্রমিকদের উপচে পড়া ভীড়, আজ শেষ হচ্ছে ই-কার্ড নিবন্ধনের সময়সীমা

আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া থেকেঃ

মালয়েশিয়ায় ই-কার্ড নিবন্ধনের শেষ সময়ে অবৈধ শ্রমিকদের উপচে পড়া ভীড়। বৃহস্পতিবার দেশটির পুত্রাযায়া ইমিগ্রেশন অফিসের সামনে সকাল থেকে হাজার হাজার অবৈধ অভিবাসীদের এ সমাগম । সে দেশে অবৈধ শ্রমিকদের বৈধভাবে কাজ করার জন্য ই-কার্ড প্রোগ্রামে অনেক সময় বেধে দিলেও অনেকে সময়মত ই-কার্ড প্রোগ্রামে নিবন্ধন না করায় শেষ সময়ে এসে প্রত্যেকটি প্রদেশের ইমিগ্রেশন অফিসের সামনে অবৈধ অভিভাসীদের প্রচুর সমাগম ঘটেছে।
ইমিগ্রেশন সূত্রে জানা গেছে , দেশটিতে অবস্থানরত ৫ থেকে ৬ লাখ অবৈধ শ্রমিকদের মধ্যে এ পর্যন্ত ১৪ হাজার ৫৪১ জন নিয়োগকারীর মাধ্যমে ২ লাখ ৪০ হাজার ৮৯১ জন নিবন্ধন করেছেন এবং নিবন্ধিত শ্রমিকদের মধ্যে বেশির ভাগই কনস্ট্রাকশন এবং সার্ভিস সেক্টরে ই-কার্ড নিবন্ধন করেছেন।
ইমিগ্রেশন মহাপরিচালক দাতুক সেরি মুস্তাফার আলী বলেন, চলতি বছরের ১৫ ফেব্রুয়ারী থেকে শুরু হওয়া এ ই-কার্ড নিবন্ধন শেষ হচ্ছে আজ। এর আগে নিবন্ধন ঘোষনার অনেক অবৈধ শ্রমিক এবং নিয়োগকর্তারা ই-কার্ড প্রোগ্রামে নিবন্ধন করতে গড়িমসি করেছেন। ১ জুলাইয়ের পর কোনো কোম্পানিতে অবৈধ শ্রমিক ধরা পড়লে জন প্রতি ১০ হাজার রিংগিত জরিমানা করা হবে এবং যদি কোনো দোষ পাওয়া যায় তাহলে তাদের আদালতে উঠানো হবে। সাথে অবৈধ শ্রমিকদের নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠানো হবে। তিনি আরো বলেন, শেষ মুহূর্তে অবৈধ শ্রমিকদের সুবিধার্থে সারাদেশে ইমিগ্রেশন বিভাগ ২৮ জুন থেকে আজ রাত ১২টা পর্যন্ত ই-কার্ড নিবন্ধনের কাজ করবে। মুস্তাফার আলী বলেন, অবৈধ শ্রমিকদের এবং নিয়োগকর্তাদের আবারো আহবান জানান শেষ মুহূর্তে ই-কার্ড প্রোগ্রামে যেন নিবন্ধন করে পরবর্তীতে তাদের যেন কোনো সমস্যায় পড়তে না হয়।
এদিকে দেশটিতে বসবাসরত অবৈধ বাংলাদেশিরা বৈধ হওয়ার জন্য মালয়েশিয়াস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে বার বার আহবান জানিয়ে আসছে। সেখানে কর্মরত অবৈধ বাংলাদেশিদের অবিলম্বে এই ই-কার্ড (টেম্পোরারি পাস) গ্রহণের পরামর্শ দিয়ে আসছেন দূতালয়ের কর্ম কর্তারা । রি-হিয়ারিং এবং ই-কাড নিবন্ধনের আওতায় বৈধ হওয়ার লক্ষ্যে দূতাবাস প্রত্যেকটি প্রদেশে মোবাইল ক্যম্পিং এর মাধ্যমে কন্স্যুলার সেবা দিয়ে আসছে।
গতকাল বৃহস্পতিবার শ্রম কাউন্সেলর মো: সায়েদুল ইসলাম এ প্রতিবেদককে বলেন, মালয়েশিয়া সরকার গত ১৫ ফেব্রুয়ারি থেকে ই-কার্ড কার্যক্রম শুরু করে। এটি চলমান রি-হায়ারিং প্রোগ্রামেরই একটি অংশ। ই-কার্ড (টেম্পোরারি পাস) সম্পর্কে তিনি জানান, যাদের কোনো প্রকার কাগজপত্র নেই তাদেরকে ডকুমেন্ট প্রদানের লক্ষ্যে টেম্পোরারি পাস দেয়া হবে। প্রথমত যাদের কোনো ধরনের কাগজপত্র নেই তারা মালিকের সহায়তায় ইমিগ্রেশন ডিপার্টমেন্টে গেলে একটি টেম্পোরারি পাস দেয়া হবে। এই কার্ডের মেয়াদ হবে এক বছর। পরে সেই কার্ডটি নিয়ে বাংলাদেশ হাইকমিশন থেকে পাসপোর্ট করাতে হবে।
এ সময়ের মধ্যে চলমান রি-হায়ারিং প্রোগ্রামের অন্তর্ভুক্ত হয়ে তারা বৈধভাবে থাকতে পারবে। আগামি কাল শেষ হচ্ছে নিবন্ধনের সময়সীমা। এর মধ্যেই সকল বাংলাদেশি শ্রমিকদের এ প্রোগ্রামের আওতায় আসতে হবে। যারা নিবন্ধন করেননি আগামি কাল দ্রুত নিবন্ধন করার আহবান জানিয়েছেন দূতাবাসের শ্রম কাউন্সেলর।
দূতাবাসের পাসপোর্ট ও ভিসা শাখার প্রথম সচিব মো: মশিউর রহমান তালুকদার জানান, রি-হিয়ারিং ও ই-কাডের আওতায় শ্রমিকদের বৈধ হতে যা করনিয় প্রত্যেকটি প্রদেশে মোবাইল ক্যাম্পিং এর মাধ্যমে কন্স্যুলার সেবা দিয়ে আসছে। গত ১৫ ফেব্রুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত ৪২ হাজার ৮৭৬ জনকে পাসপোর্ট প্রদান করা হয়েছে।
এদিকে পুলিশি ঝামেলা ছাড়াই কাগজপত্রহীন শ্রমিকদের বৈধভাবে নির্বিঘ্নে কাজ করতে এই কর্মসূচির আওতায় আসার জোর তাগিদ দিয়েছেন কমিউনিটির নেতারা।

(57 বার পড়া হয়েছে)

(Visited 1 times, 1 visits today)